Daily Frontier News
Daily Frontier News

আজ পবিত্র শবে মিরাজ

 

প্রভুর সাক্ষাতে মহানবীর ঊর্ধ্বকাশে গমন

গাজী মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম জাবির।।

আজ বৃহস্পতিবার (২৬ রজব ১৪৪৫ হিজরি),৮ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাতে পবিত্র শবে মিরাজ। ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালিত হবে পবিত্র এ রজনী। ইসলাম ধর্মমতে, মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর ৫১/৫২ বছর বয়সে মিরাজের ঘটনা ঘটে। মহান আল্লাহ পৃথিবী থেকে রাসুল (সা.)-কে বিশেষ বাহনের (বোরাক) মাধ্যমে প্রথম আসমান থেকে একে একে সপ্তম আসমান, জান্নাত-জাহান্নাম পরিদর্শন করান। নবী করিম (সা.)-এর মিরাজের রাতের এই ঘটনা স্মরণে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা ইবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে পবিত্র শবে মিরাজ পালন করেন। বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বে যথাযোগ্য মর্যাদায় ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র মিরাজুন্নবী (দ.) উপলক্ষে আলোচনা সভা, সেমিনার,আজিমুশশান মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে বিভিন্ন মসজিদ, খানকায় পবিত্র কোরআন মজিদ তেলোওয়াত, পবিত্র নাতে রাসূল (দ.), পবিত্র খতমে গাউছিয়া শরীফ এবং পবিত্র লাইলাতুল মিরাজুন্নবী (দ.) এর মহিমান্বিত রজনীর  তাৎপর্য  ও গুরুত্বের উপর দেশবরেণ্য উলামায়ে কেরামগণ বক্তব্য রাখবেন।

ফারসি শব শব্দের অর্থ রাত ও আরবি মিরাজ শব্দের অর্থ ঊর্ধ্বারোহণ বা ঊর্ধ্বগমন। মহিমান্বিত এ রাতে দুনিয়া ও আখেরাতের সার্বভৌম ক্ষমতার মালিক আল্লাহ তায়ালার হুকুমে আল্লাহর প্রিয় নবী ও রসুল হযরত মুহাম্মদ (সা.) আরশে আজিম পর্যন্ত ঊর্ধ্বলোক গমনের সৌভাগ্য লাভ করেছিলেন। এ সময় তিনি মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের দিদার লাভ করেন এবং আল্লাহর কাছ থেকে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের বিধান নিয়ে  আবার দুনিয়াতে ফিরে আসেন। এ কারণেই রাতটি মুসলমানদের কাছে অত্যন্ত পবিত্র। মুসলিম বিশ্ব অলৌকিক ও ঐতিহাসিক এ ঘটনার স্মারক দিবস হিসেবে প্রতিবছর ২৬ রজবের দিবাগত রাতটিকে শবে মিরাজ হিসেবে পালন করে থাকে। বাংলাদেশেও ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা এ মহিমান্বিত রাতটি আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত, নফল নামাজ আদায়, জিকির-আসকার, দোয়া-দরুদ ও ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে পালন করবেন।

নবুয়ত লাভের ১১তম বছর (৬২১ খ্রিস্টাব্দ) হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্য দুঃখ ও শোকের বছর ছিল। এ সময় তিনি তাঁর কঠিন সময়ের দুজন প্রিয় ব্যক্তি স্ত্রী খাদিজা (রা.) ও চাচা আবু তালেবকে হারিয়েছেন। এছাড়া ইসলামের দাওয়াত নিয়ে তায়েফ গেলে সেখান থেকেও আশাহত হয়ে ফেরেন। এরপর মহান আল্লাহ ইসরা ও মিরাজের মাধ্যমে প্রিয় রাসুলকে বিশেষভাবে সম্মানিত করেন। সেদিন রাতে মহানবী (সা.) মক্কার মসজিদুল হারাম থেকে জিবরাইল (আ.)-এর সঙ্গে বোরাক নামক বিশেষ বাহনে করে বাইতুল মুকাদ্দাসে যান। সেখানে নবী-রাসুলদের সঙ্গে দুই রাকাত নামাজ আদায় করে তিনি সাত আসমান অতিক্রম করেন। সেখানে তাঁর সঙ্গে বিভিন্ন নবীর দেখা হয়। সিদরাতুল মুনতাহার আগ পর্যন্ত তাঁর সঙ্গে ছিলেন জিবরাইল (আ.)।  শবে মিরাজ উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন নানা কর্মসূচি পালন করবে।এসব অনুষ্ঠান শেষে তাবাররুক বিতরণ, মিলাদ-কিয়াম ও আখেরী মোনাজাত ও তাবারুক বিতরণ করা হবে।

Daily Frontier News