Daily Frontier News
Daily Frontier News

কুমিল্লায় প্রবাসীর অর্থায়নে দোতলা একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মাণ

 

 

মোঃ আব্দুল্লাহ বুড়িচং।।

 

কুমিল্লার বুড়িচংয়ে মাত্র ৩৭২ দিনে জাহাঙ্গীর হোসেন ভূইয়া নামে এক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসীর অর্থায়নে দোতলা একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে। বুড়িচং উপজেলার ইছাপুরা পশ্চিমপাড়া এলাকায় নির্মিত ওই মসজিদের নাম ‘মসজিদ-ই- নূর’দেওয়া হয়েছে।

গত শুক্রবার (৬ জানুয়ারি ২০২৩ইং) জুমার নামাজের মধ্য দিয়ে দোতলা মসজিদটির উদ্বোধন করা হয়েছে। প্রায় ৩ হাজার মুসল্লি সেদিন নামাজ আদায় করেছেন।

মসজিদটি উদ্বোধনকালে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আবুল হাসেম খান, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) সাবেক এমডি গাজীউল হাসান খান, বুড়িচং উপজেলা চেয়ারম্যান

বীরমুক্তিযোদ্ধা আখলাক হায়দার, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম খোকন, জেলা আওয়ামী লীগের নেতা আবদুস ছালাম বেগ,ডিএলএম গ্রুপের চেয়ারম্যান এম.এ. মতিন এমবিএ, কুমিল্লা জেলা পরিষদের সদস্য মো. মশিউর রহমান খান, উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মো.কবির হোসেন,কুমিল্লা জেলা বিএনপির সদস্য ও ময়নামতি মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম শাহীন, সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. সিরাজুল ইসলাম , সাবেক চেয়ারম্যান মো. বিল্লাল হোসেন, সাবেক চেয়ারম্যান(বুড়িচং সদর) জাবেদ কাউছার সবুজ,বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির বাবুল,
উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মীর হোসেন মিঠু, ষোলনল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মো. বিল্লাল হোসেন, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ইঞ্জি.বাছির খান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন মানিক, সাংগঠনিক সম্পাদক বাদল খা মেম্বার,বাসসের ঊর্ধ্বতন হিসাবরক্ষক কর্মকর্তা মো. ফারুক আহমেদ ভুইয়া, উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও এরশাদ ডিগ্রি কলেজের সাবেক আহবায়ক মোঃ জামাল হোসেন, ষোলনল ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আবুল কাশেম, মোঃজাহাঙ্গীর আলম (ব্রিকস্), মো. সালেহ আহাম্মদ, মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মোঃআলমগীর হোসেন, মোঃ বিল্লাল হোসেন প্রমুখ।

এই দোতলা মসজিদটিতে ১ টি গম্বুজ এবং ২ টি মিনার নির্মাণ করা হয়েছে। দোতলা মসজিদের সামনের অংশে দেয়ালে উন্নতমানের টাইলস ব্যবহার করা হয়েছে। ভেতরে নান্দনিক ডিজাইন করা হয়েছে। মসজিদের মেঝেতেও তাপ সংবেদনশীল টাইলস ব্যবহার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে মসজিদটি নির্মাণে কোটি টাকারও বেশি ব্যয় করা হয়েছে। যদিও নির্মাতা ব্যয় নিয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

ইউপি মেম্বার তোফায়েল বলেছেন, মসজিদটি হওয়াতে আমাদের খুব উপকার হয়েছে। জামায়াতে নামাজ আদায় করতে আগে আমরা একটি মসজিদের শূন্যতায় ছিলাম, অনেক দূর গিয়ে নামাজ পড়তে হতো। আমাদের সেই সমস্যাটা কেটে গেল। ধন্যবাদ জাহাঙ্গীর সাহেবকে।

মসজিদ-ই-নুরের প্রাতিষ্ঠাতা যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী জাহাঙ্গীর হোসেন ভুইয়া সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, এলাকার মানুষ যেন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে এসে আদায় করতে পারে সেজন্যই মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে। তাছাড়া এলাকায় একটি দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মাণ করার ইচ্ছা ছিল আমার পূর্বপুরুষদের। তাই পূর্বপুরুষদের স্বপ্ন পূরণে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে।

মসজিদ নির্মাণে ব্যয় সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, বিষয়টা আমি প্রকাশ করতে চাচ্ছি না। তবে যা ব্যয় হয়েছে সব একান্তই আমার আয়ের অর্থ ছিল।

Daily Frontier News