Daily Frontier News
Daily Frontier News

শায়েস্তা গঞ্জে ওসির বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ নিহতের পরিবারের

 

আব্দুল জাহির মিয়া চুনারুঘাট প্রতিনিধিঃ- 

জেলার চুনারুঘাট উপজেলার ৫ নং শানখলা ইউনিয়নের অন্তর্গত শাহজীবাজার বনবিটের রিজার্ভ ফরেস্টের জঙ্গলের ভিতর থেকে রাসেল মিয়ার অর্ধগলিত লাশ উদ্ধারের ঘটনায় তার মা মাফুল বেগম চুনারুঘাট থানায় মামলা করেন। শুক্রবার দুপুরে অজ্ঞাতনামা আসামী করে হত্যা মামলা করেন। নিহত রাসেল মিয়া শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার লাদিয়া এলাকার আব্দুল খালেকের পুত্র। তবে এ ঘটনায় পুলিশ এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। মামলায় অজ্ঞাত কয়েকজন দুর্বৃত্ত অপহরণ করে হবিগঞ্জের তিন থানার সীমান্ত উপজেলার ৫ নং শানখলা ইউনিয়নের অন্তর্গত শাহজীবাজার বনবিটের রিজার্ভ ফরেস্টের উচাইল টিলার জঙ্গলের ভিতর নিয়ে রাসেলকে হত্যা করেছে বলে উল্লেখ করা হয়। এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চুনারুঘাট থানার ওসি রাশেদুল হকের নেতৃত্বে একদল পুলিশ লাশ উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে প্রেরণ করেন। ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ লাশ হস্তান্তর করে। দুপুরে নিহতর বাড়ি শায়েস্তাগঞ্জের লাদিয়া পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে। নিহতর বড় ভাই রাহেল মিয়া জানান, রাসেল মিয়া নিখোঁজের পর শায়েস্তাগঞ্জ থানায় ওসির কাছে অবগত করে সহযোগিতা চাইলে তিনি কোন সহযোগিতা করেননি বরং তাদেরকে অপমান করেন। নিহতর মা মাফুল আক্তার জানান, শায়েস্তাগঞ্জ থানায় ওসির কাছে যাওয়ার পরও নিহত রাসেলের মোবাইল ফোন চালু ছিল। তিনি চাইলেই তার নাম্বার তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে লোকেশান খুঁজে বের করতে পারতেন। তিনি কোন সহযোগিতা না করে তাদেরকে থানা থেকে তাড়িয়ে দেন। তিনি আরো বলেন, কারা আমার ছেলেকে মারছে, তা জানি না। তবে যারাই ছেলেকে মারছে, তারা খুবই নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করছে। পুলিশের কাছে এ ঘটনার আসল অপরাধীকে গ্রেপ্তারের দাবি জানাই। কোনোভাবেই যেন অপরাধী ছাড় না পায়। এদিকে নিহতের পরিবারের সাথে অনিয়মের বিষয়ে জেলার পুলিশ সুপারের নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শৈলেন চাকমা শুক্রবার বিকেলে তদন্ত করেন। তিনি বলেন, অনিয়ম হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে চুনারুঘাট থানার ওসি রাশেদুল হক জানান, ঘটনাটি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। খুনি যে-ই হোক, দ্রুত তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। স্থানীয়রা জানান, রঘুনন্দন ফরেস্টটি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট, মাধবপুর ও শায়েস্তাগঞ্জ সহ ৩ উপজেলা ঘেঁষা। সেখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় ওই সীমান্তে অপরাধ কর্মকাণ্ড বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি, এখানে নিরাপত্তার কোনও অভাব নেই।

Daily Frontier News