Daily Frontier News
Daily Frontier News

মাধবদী আনন্দী সংখ্যালঘুর উপরে হামলা, ভাংচুর, স্বর্ণালংকার চুরি ও হত্যার হুমকি থানায় অভিযোগ দায়ের

 

 

আ: ছাত্তার মিয়া নরসিংদী:

 

নরসিংদী মাধববী আনন্দী সংখ্যালঘুর উপর হামলার অভিযোগ ও জিনিসপত্র লুটপাট ও স্বর্ণালংকার চুরির অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত: ১৬ ই ফেব্রুয়ারী রোজ বৃহস্পতিবার সকাল আনুমানিক ৯টায় ফজর আলী ও তার বউ সীমা বেগম উজ্জ্বলা বনিকের বাড়িতে হামলা করে ব্যাপক ভাংচুর ও হামলা করে বলে জানা যায়,এর পর ঘটনাটি স্থানীয় কাউন্সিলর নওসেরকে জানানো হয়। ভুক্তভোগী উজ্জ্বলা বণিক জানান তার বাড়িতে ফজর আলী ও তার স্ত্রী সীমা বেগম দীর্ঘদিন যাবত উজ্জ্বলা বণিককে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি ও ভয়-ভীতি দেখায় আসছে। জানা যায় উজ্জ্বলা বণিক তার একই বাড়ির পাশে একটি সবজি চাষ করে এতে করে মোঃ ফজল আলী সিমা বেগম আর তাদের বাড়ি সন্নিকটে হওয়ায় ফসলাদি নষ্ট করে এতে উজ্জ্বলা বনিক প্রতিবাদ করলে তার উপরে চড়াও হয়ে মার পিট ও তার সাথে থাকা নাকের ফুল, কানের দুল, প্রায় ৫০ হাজার টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যায় এ ব্যাপারে এলাকায় গণমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে পরামর্শ করে মাধবদী মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিক মেয়রের বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করেন।ঘটনাটি মেয়র মহোদয় কাউন্সিলার নওসেরকে দায়িত্ব দেওয়া হলেও তিনি মিট করতে পারেনি তিনটি নোটিশর মাধ্যমে ফজর আলীকে ডাকালে সে উপস্থিত না হয়ে বাদীকে হুমকি দিতে থাকে। ইদানিং উজ্জলা বনিকের টমেটো জমি হতে অনেক গুলি টোমেটো একাধিক চাড়া তুলে ফেলে ফসলের ক্ষতি সাধন করে বলে তিনি জানান। এই ব্যাপারটা নিয়ে কয়েকবার দরবার শালীশ বসলে ফজর আলী দরবার শালিশকে উপেক্ষা করে মাধবদী থানায় ফজর আলীর বউ সীমা আক্তার, ব্লেড দিয়ে হাত কেটে উজ্জ্বলা বণিকের বিরুদ্ধে মাধবদী থানা একটি অভিযোগ দায়ের করেন তারপর থানা থেকে উজ্জ্বলা বনিক কে যেতে বললে তিনি থানায় ওসি সাহেবের সাথে দেখা করে। ওসি সাহেব ঘটনাটি সাজানো বুঝতে পেরে উজ্জ্বলা বনিক কে একটি অভিযোগ দিতে বললেন। তারপর অভিযোগ দুটি এস আই ফরহাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দুই ও পক্ষকে শান্ত শৃঙ্খলা ভাবে থাকার জন্য আহ্বান করে চলে যান। সূত্রের আরো জানা যায়,ফজর আলী ও তার ছেলে আন্তজেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য তাদের বিরুদ্ধে একাধীক, হত্যাসহ ডাকাত, চুরির মামলা রয়েছে। তাদের ভয়ে এলাকায় কেউ মুখ খুলতে পারেন না। এ ব্যাপারে ফজর আলীর সাথে কথা বলে তিনি জানান দরবার শালিশে আমি একবার জরিমানা দিয়েছি।আমি উজ্জ্বলা বণিককে আর হয়রানি করবো না। উজ্জ্বলা বণিক জানান ঘটনাটি সুষ্ঠুভাবে তদন্তপূর্বক আইনের ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করি প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট। আমি এবং আমার পরিবারের লোকজন ফজর আলীর ভয়ে আতঙ্কিত রয়েছি।

Daily Frontier News