Daily Frontier News
Daily Frontier News

বুড়িচংয়ে চাঁদা বন্ধ ও হত্যার বিচারের দাবিতে লাশ নিয়ে মহাসড়কে বিক্ষোভ

 

 

বুড়িচং( কুমিল্লা) প্রতিনিধি।।

 

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলায় সিরিয়াল দেওয়ার নামে সিএনজি অটোরিকশা থেকে চাঁদা তোলাকে কেন্দ্র করে আবুল কাশেম নামে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

এ ঘটনায় চাঁদা বন্ধ ও বিচারের দাবীতে আবুল কাশেমের লাশ মর্গে থেকে এনে (২৬ মার্চ ২০২৩) রোববার দুপুরে ঢাকা- চট্রগ্রাম মহাসড়কে বিক্ষোভ মিছিল করেন এলাকাবাসী।

হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে শনিবার সকালে উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের শিকারপুর মালিবাড়ি এলাকায়। নিহত আবুল কাশেম (৩৭) মোকাম ইউনিয়নের ভারিকোঠা গ্রামের মৃত আরব আলীর ছেলে। এ ঘটনায় রোববার দুপুরে চাঁদা তোলা বন্ধ ও হত্যার বিচার দাবিতে প্রথমে ঢাকা- চট্রগ্রাম মহাসড়কে বিক্ষোভ পরে নিমসার-কংশনগর বাজার সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে স্থানীয়রা। পরে কুমিল্লা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ কামরান হোসেন ও উপজেলা প্রশাসন বিক্ষোভ মিছিল ও অবরোধ স্থানে গিয়ে বিচারের আশ্বাস দিলে অবরোধ তিন ঘন্টার পর তুলে নেয় স্থানীয়রা। এসময় উপস্থিত ছিলেন বুড়িচং উপজেলা ইউএনও সাহিদা আক্তার, বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি মোঃ ইসমাইল হোসেন, ওসি তদন্ত কবির হোসেন,দেবপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. জাবেদুল ইসলামসহ অন্যান্য প্রশাসনিক কর্মকর্তারা।পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের পর লাশ জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাযায় অংশগ্রহণ করেন কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আ’লীগের সিনিয়ন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বুড়িচং উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ সাজ্জাদ হোসেন,মোকাম ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাহেব আলী।

নিহতের বড় ভাই সিএনজি চালক আবুল কালাম বলেন, শনিবার সকালে নিমসার বাজারে সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে যাই। এ সময় নিমসার বাজারে জিবির (চাঁদা) টাকা চায় সায়দুল, মিজান ও বাকিরসহ ছয়-সাত জন। প্রতিদিন তাদের চাঁদা দিতে হয়। আজ টাকা না থাকায় চাঁদা দিতে অপারগতা প্রকাশ করি। এ সময় আমার ওপর হামলা চালায় তারা। আহত অবস্থায় আমাকে চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে ছোট ভাই আবুল কাশেম আমাকে দেখতে হাসপাতালে আসে। বিকালে বাড়ি ফেরার পথে শিকারপুর মালিবাড়ি এলাকায় শাহিদুল, মিজান, বাকির,জাকিরসহ ছয়-সাত জন তাকে পিটিয়ে আহত করে। আহত অবস্থায় কাশেমকে কাবিলা ইস্টার্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

বিক্ষোভ মিছিলে বক্তারা বলেন, জিবির নামে চাঁদাবাজির কারণে প্রতিনিয়ত নানা অঘটন ঘটছে। প্রথমে বড় ভাই আবুল কালামকে পিটিয়ে আহত করা হয়। পরে ছোট ভাই আবুল কাশেমকে পিটিয়ে হত্যা করেছে তারা। ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানাই।এ ঘটনার পর নিহত আবুল কাশেমের স্ত্রী রেহেনা আক্তার বাদী হয়ে শনিবার সন্ধ্যায় বুড়িচং থানাতে একটি মামলা দায়ের করেন।

উক্ত বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, নিমসার সিএনজি ড্রাইভার একতা সমিতির সভাপতি আবুল কালামসহ অন্যান্যরা। এসময় উপস্থিত ছিলেন শাতাধিক সিএনজি অটোরিকশা চালক।

এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার( সদর সার্কেল)কামরান হোসেন বলেন, সড়কে অবরোধের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ এনে গাড়ি চলাচলের ব্যবস্থা স্বাভাবিক করে দেই।নিহতের ঘটনায় বিষয়ে থানায় মামলা হয়েছে।ন্যায়-বিচার পেতে আমার সর্বাধিক সহযোগীতা করব এবং হত্যাকান্ডের সাথের জড়িত আসামিদের ধরতে পুলিশ মাঠে রয়েছে।

Daily Frontier News